সেপ্টেম্বরেই ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

0
2

প্রায় ১০ হাজার কনস্টেবল নেবে বাংলাদেশ পুলিশ। ২০২০ সালের শেষদিকে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার কথা থাকলেও করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এবং যোগ্যতা সংক্রান্ত কিছু মানদণ্ড নির্ধারণের কারণে তা পিছিয়ে যায়।

এরপর এই নিয়োগ প্রক্রিয়া চলতি বছরের জুন ও জুলাইয়ে শুরু হওয়ার কথা থাকলেও দেশে করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বগতির ফলে তা আবারও পিছিয়ে যায়।

বুধবার (৪ আগস্ট) পুলিশ সদর দফতর সূত্রে জানা গেছে, আগামী সেপ্টেম্বর মাসেই ১০ হাজার কনস্টেবল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হতে পারে।

পুলিশ সদর দফতর থেকে জানা গেছে, নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের প্রস্তুতি প্রায় শেষপর্যায়ে। শুধুমাত্র করোনার প্রাদুর্ভাব কম হলেই সেপ্টেম্বর মাসেই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে। এবার কনস্টেবল পদে আবেদনের জন্য শিক্ষাগত ও শারীরিক যোগ্যতায় কিছুটা পরিবর্তন আনা হবে।

জানা যায়, বাংলাদেশ পুলিশ নিয়মিত ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর নিয়োগ পরীক্ষা আয়োজনের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিতে জেলার পুলিশ সুপারদের (এসপি) নির্দেশনা দিয়েছে পুলিশ সদর দফতর।

চলতি বছরের জুন মাসে এক চিঠির মাধ্যমে সদর দফতরের এআইজি (রিক্রুটমেন্ট অ্যান্ড ক্যারিয়ার প্ল্যানিং-২) মো. নাসিরুল ইসলাম এই নির্দেশনা দেন। এই চিঠি এসপি ছাড়াও দেশের সব বিভাগের ডিআইজিদের পাঠানো হয়।

চিঠিতে পুলিশ সদর দফতর জানায়, কনস্টেবল পদে অধিক যোগ্য ও দক্ষ প্রার্থী নির্বাচনের জন্য আসন্ন নিয়োগ পরীক্ষায় বিভিন্ন ইভেন্টের মাধ্যমে তাদের শারীরিক সহনশীলতা পরীক্ষা (ফিজিক্যাল এন্ডুরেন্স টেস্ট) নেয়া হবে।

এরমধ্যে রয়েছে নারী ও পুরুষ আবেদনকারীদের জন্য ২০০ মিটার দৌড়, ১০০০ মিটার দৌড়, ১৬০০ মিটার দৌড়, লং জাম্প, হাই জাম্প, পুশ-আপ, রোপ ক্লাইম্বিং এবং ড্র্যাগিং পরীক্ষা।

চিঠিতে বলা হয়েছে, সবাইকে এসব পরীক্ষার আয়োজনে দ্রুত স্থান ও ভিত্তিস্থাপনের নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে।

আবেদন যোগ্যতায় যেসব পরিবর্তন
কয়েক বছর ধরে কনস্টেবল পদে আবেদনের ক্ষেত্রে প্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতার মানদণ্ড ছিল কমপক্ষে জিপিএ-২.৫ সহ এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া। তবে এবার যোগ্যতার মানদণ্ড কিছুটা বাড়ানো হচ্ছে।

কনস্টেবল পদে আবেদনের জন্য ন্যূনতম যোগ্যতা এইচএসসি পাশ করা হতে পারে বলে জানা গেছে। তবে বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

এছাড়া এবার নিয়োগের ক্ষেত্রে উচ্চতা ও বুকের মাপে কিছুটা পরিবর্তন আনা হতে পারে। এতদিন পুরুষদের কনস্টেবল হওয়ার জন্য উচ্চতা কমপক্ষে ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি ও নারীদের জন্য ৫ ফুট ২ ইঞ্চি ছিল।

এবার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে নারীদের উচ্চতার মানদণ্ড ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি করা হতে পারে। আবেদনকারীদের বয়স হতে হবে ১৮ থেকে ২০ বছর।

পুলিশ সদরদফতরের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা জানান, নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরুর প্রস্তুতি প্রায় শেষপর্যায়ে। নিয়োগবিধিতে কিছু সংশোধন আনা হচ্ছে। সেটি এখনও অনুমোদিত হয়নি।

সংশোধনী অনুমোদন ও প্রশাসনিক প্রক্রিয়া শেষ করে আগস্ট মাসের মধ্যেই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হবে। স্বচ্ছতা ও তদবির কমাতে নিয়োগবিধিতে সংশোধনী আনা হচ্ছে।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে আবেদনের ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা দেয়া থাকবে। তবে শিক্ষাগত যোগ্যতায় যারা এগিয়ে তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

পুলিশ সদরদফতরের রিক্রুটমেন্ট শাখায় কর্মরত এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, নিয়োগ ও নিয়োগপ্রক্রিয়াকে স্বচ্ছ করতে নিয়োগবিধিতে কিছু সংশোধনী আনা হচ্ছে। সংশোধনীগুলো চূড়ান্ত হলেই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে নিয়োগপ্রক্রিয়া শুরু করা হবে।

পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স) মো. সোহেল রানা বলেন, করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির ফলে কনস্টেবল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পিছিয়েছে। তবে নিয়োগের জন্য আইজিপি স্যারের নির্দেশনায় সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই এ নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হবে।

পুলিশ সদর দফতরের ডিআইজি (অপারেশন ও প্ল্যানিং) মো. হায়দার আলী খান বলেন, নিয়োগবিধি সংস্কার ও যুগোপযোগী করা হয়েছে। জনগণের আকাঙ্ক্ষার পুলিশ পেতে হলে নিয়োগে অবশ্যই দুর্নীতি-অনিয়ম বন্ধ করতে হবে। তাই আমরা পুলিশে যেকোনো নিয়োগে অনিয়ম দুর্নীতির বিষয়ে জিরো টলারেন্স নিয়ে কাজ করছি। আইজিপি মহোদয় ইতোমধ্যে জনগণের কাঙ্ক্ষিত পুলিশ পেতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছেন। পুলিশ সদর দফতর সেসব পদক্ষেপ বাস্তবায়নে কাজ করছে।

বর্তমানে বাংলাদেশ পুলিশে ২ লাখ ১০ হাজারের মতো ফোর্স রয়েছে। ২০১৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ধাপে ধাপে আরও ৫০ হাজার পুলিশ নিয়োগের নির্দেশনা দেন। তবে করোনার কারণে ২০২০ সালে পুলিশের নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করা যায়নি।