কাবুলের রানওয়েতে জনসমুদ্র! বিমানে উঠতে হুড়োহুড়ি, দেশ ছাড়ার মরিয়া চেষ্টা

0
3

আত’ঙ্কের পরিবেশ। দমব’ন্ধ হওয়ার মতো তালিবানি-রাজ। প্রা’ণে বাঁচতে তাই দেশ ছাড়ার হিড়িক পড়ে গিয়েছে আফগানদের মধ্যে। কাবুল বিমানবন্দরের দিকে ছুটে যাচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। একে অপরকে ঠেলে ফে’লে যে ভাবেই হোক বিমানে ওঠার আপ্রা’ণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। কাবুল বিমানবন্দর জনসমুদ্রে প’রিণত হয়েছে। এমনই ভিডিয়ো নেটপাড়ায় ছড়িয়ে পড়েছে।

কাবুল তালিবানদের দখলে চলে আসার দ্বিতীয় দিনে পড়েছে। প্রথম দিন থেকে রাজধানী কাবুলের প’রিস্থিতির টুইট করে জা’নাচ্ছেন জাওয়াদ সুখানওয়ার নামে সে দেশের এক সাংবাদিক। সোমবার তাঁর টুইটে কাবুলের এই আত’ঙ্কের ছবি ধ’রা পড়েছে। তিনি টুইটে লি’খেছেন, ‘কাবুলের আরও একটি দিনের শুরু। কাবুল বিমানবন্দরের দিকে জনসমুদ্র!’

যে সমস্ত ভিডিয়ো প্র’কাশিত হয়েছে তা দেখে আঁতকে উঠতেই হয়। তাতে দেখা গিয়েছে, রানওয়েতে দাঁড়িয়ে থাকা বিমান ঘিরে রয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। তাঁদের একাংশ নিজেদের মধ্যে মা’রপিঠ করে বিমানে ওঠার চেষ্টা চালাচ্ছেন। কোনও ভিডিয়োয় দেখা যাচ্ছে, বিমানে জায়গা পেতে প্রা’ণপন ছুটছেন একাংশ। জনসমুদ্র সরিয়ে বিমান কী ভাবে উড়বে, তা নিয়েও সংশয় তৈরি হয়েছে।

রবিবার সকালে দক্ষিণের জালালাবাদ দখল নেওয়ার পর দুপুরের মধ্যে বিনা যু’দ্ধে কাবুল দখল করে তালিবান। শান্তিপূর্ণ ক্ষ’মতা হস্তান্তর নিয়ে তালিবান প্রধান মোল্লা আবদুল গনি বরাদরের স’ঙ্গে ৪৫ মিনিট বৈঠকের পরই পদত্যা’গ করেছিলেন প্রেসিডেন্ট গনি। তারপর তিনি নিজেও দেশ ছেড়েছেন।
ইতিমধ্যে আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, কোরিয়া, কাতার এবং ব্রিটেন-সহ মোট ৬০টি দেশ যৌথ বিবৃতিতে তালিবানদের সাধারণ মানুষের প্রতি সহনশীল হওয়ার আবেদন জা’নিয়েছে এবং আফগানিস্তানের সমস্ত নাগরিকের সুর’ক্ষায় তাঁদের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বা’সও দিয়েছে।

আফগানিস্তানের প’রিস্থিতি কতটা ভ’য়াবহ, তা আরও একটি টুইট থেকে বোঝা যায়। স্টেফানি গ্লিনস্কি নামে আফগানিস্তানে ক’র্মরত এক মহিলা সাংবাদিক এক টুইট করে জা’নিয়েছিলেন, হেরটের দখল নেওয়ার পরই সেখানকার বিশ্ববিদ্যালয়ে মহিলাদের ঢোকা ব’ন্ধ করে দিয়েছে তালিবান। হেরটের সমস্ত অফিস থেকে মহিলাদের বার করে দেওয়া হয়েছে। তাঁদের বাড়ি চলে যেতে বলা হয়েছে এবং জা’নিয়ে দেওয়া হয়েছে তাঁদের জায়গায় এ বার পুরুষদের নিয়োগ করা হবে।